পোশাক কারখানায় অগ্নিকাণ্ড রোধে বিজিএমইএর ১০ সতর্কবার্তা

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সকাল ১১:০৮, সোমবার, ২০ জুন, ২০২২, ৬ আষাঢ় ১৪২৯

জরুরি অবস্থা মোকাবিলা করার জন্য কারখানায় প্রশিক্ষিত লোকের ব্যবস্থা রাখা এবং পুরো কারখানার নিরাপত্তা ব্যবস্থা তত্ত্বাবধায়নের জন্য সার্বক্ষণিকভাবে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অভিজ্ঞ ও একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা এবং অগ্নিনির্বাপণ বিষয়ে প্রশিক্ষিত সিকিউরিটি গার্ড নিযুক্ত রাখা।

তাৎক্ষণিকভাবে আগুন নির্বাপণ করার জন্য কারখানায় প্রয়োজনীয় অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র, পানি ভর্তি ড্রাম ও বালতি এবং হোজ রিল রাখা এবং এগুলো সার্বক্ষণিক কার্যকরী রাখা।

সাবোট্যাজ বা শত্রুতামূলক আগুন প্রতিরোধের জন্য কারখানার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার আওতায় রাখা এবং সেগুলো সার্বক্ষণিকভাবে চালু রাখার ব্যবস্থা করা, প্রয়োজনের গোপন ক্যামেরা স্থাপন করা।

কারখানার ফ্লোরে এবং সিঁড়িতে অবশ্যই বিকল্প জরুরি বাতি এবং ফায়ার অ্যালার্মের ব্যবস্থা রাখা এবং এগুলো কাজের উপযোগী আছে কি না তা নিয়মিত পরীক্ষা করা।

দুর্ঘটনায় যাতে পদদলিত হয়ে কোনো শ্রমিক হতাহত না হয় সেজন্য কারখানা নিয়মিত বহির্গমন মহড়া পরিচালনাপূর্বক রেকর্ড সংরক্ষণ করা এবং কারখানায় অগ্নি দুর্ঘটনা সংঘটিত হলে সঙ্গে সঙ্গে ফায়ার সার্ভিস ও বিজিএমইএর জরুরি ফোন নম্বরে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা নেওয়ার আহ্বান জানান ফারুক হাসান।

বিষয়ঃ বাংলাদেশ

Share This Article


আউশের উৎপাদন বাড়াতে ৬৪ কোটি টাকার প্রণোদনা

নিত্যপণ্যের প্রকৃত দাম জানাবে ‘৩৩৩’

সত্যি কি টাইটানিক ডুবে যাওয়ার নেপথ্যে ছিল ‘মমির অভিশাপ’?

নতুন পোস্টপেইড প্যাকেজ ‘সিলেক্ট’ নিয়ে এলো

আজ ট্যাক্স কার্ড পাচ্ছেন যারা

১৮তম শিক্ষক নিবন্ধন থেকে কত আয় করেছে এনটিআরসিএ?

সরকার বিরোধী এজেন্ডা বাস্তবায়ন: সহিংসতার জেরে ২০০ পোশাক কারখানা বন্ধ!

১৩ দিনে এলো ৭৮ কোটি ডলার রেমিট্যান্স

রফতানি আয়ে সুবাতাস: সেপ্টেম্বরে এলো ৪.৩১ বিলিয়ন ডলার

২০৩৪ সাল পর্যন্ত কানাডায় রপ্তানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা পাচ্ছে বাংলাদেশ

আগামীকাল থেকে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু

বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রশংসা করছে এডিবি