পদ্মাসেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র চলছে এখনও!

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ বিকাল ০৪:৩৬, সোমবার, ২৭ জুন, ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯

পদ্মাসেতুই হচ্ছে বিশ্বের প্রথম সেতু, যে সেতুটি জন্মের আগে থেকেই নানান ষড়যন্ত্রের সম্মুখিন হয়েছে। এমনকী সেতু উদ্বোধনের পরও থেমে নেই এই ষড়যন্ত্র। দেশের একটি মহল প্রতিটা মূহূর্ত ব্যয় করছে পদ্মাসেতুকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে।

পদ্মাসেতু প্রকল্পের শুরুতেই বলা হয়েছে, এখানে দুর্নীতি হয়েছে। যদিও কানাডার আদালতে এটা প্রমাণ হয়েছে যে এই প্রকল্পে কোন দুর্নীতি হয়নি। কিন্তু দুর্নীতি  হয়েছে বলে বছরের পর বছর প্রচারণা চালিয়েছে মহলটি।  

তারপর নানান চড়াই উৎরাই পেরিয়ে পদ্মাসেতু যখন প্রায় তৈরি হয়ে গেছে তখন তারা সামনে আনলো ভূপেন হাজারিকা সেতু। বললো এর চেয়ে অনেক কম খরচে ভূপেন হাজারিকা সেতুটি নির্মান হয়েছে। পদ্মাসেতু সংস্লিষ্টরা নানান যুক্তি দিয়ে বোঝালেন ঠিক কি কি কারনে পদ্মাসেতুতে অতিরিক্ত খরচ করতে হয়েছে।

এরপর তারা প্রশ্ন করলো, নিজের টাকায় সেতু হলে আমরা টোল দিব কেন?এর উত্তরে সরকারের তরফ থেকে বিশ্বের নানান দেশের উদাহরণ টেনে রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক ব্যবস্থার নিয়মকানুন তুলে ধরে বোঝানো হলো কেন যাত্রীদের টোল দিতে হবে।  

এরপর বলা হলো টোল অতিরিক্ত নির্ধারণ করা হয়েছে। এর উত্তরে বোঝানো হলো ফেরিতে ৩/৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করার চেয়ে মাত্র ৫ মিনিটে সেতু পার হওয়ার জন্য এই টোল বেশি নয়।এমনকি দৈর্ঘ হিসেব করেও বেশি নয়।

এরপরও ষড়যন্ত্র থেমে থাকলো না। ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী এমন ঘোষণার পর নানান ষড়যন্ত্র চলতে লাগলো।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগে  দেশের বিভিন্ন জায়গায় একের পর এক অগ্নিকাণ্ডকে নিছক দুর্ঘটনা হিসেবে দেখেনি গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। তাই উদ্বোধনের আগে আটঘাট বেধেই সকল নাশকতা ঠেকানোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিলো।

সবকিছু পেরিয়ে যখন পদ্মাসেতু উদ্বোধন করা হলো তখন এক অসুস্থ প্রতিযোগিতা লক্ষ্য করা গেছে সেতুকে কেন্দ্রে করে। সবচেয়ে বড় উদ্বেগের কারণ হলো সেতুতে উঠে নোংরামি করা।

নির্দেশনা অমান্য করে অনেকে সেতুতে মোটরসাইকেল নিয়ে উঠে সেতুর মাঝ পথে থেমে করেছেন টিকটক ভিডিও। এই উচ্ছ্বাসের ভিড়ে ঘটেছে একাধিক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাও। সেতুতে একজনের মূত্রত্যাগের ছবিও ছড়িয়েছে। একজন টিকটকার পদ্মাসেতুর নাট-বল্টু খুলে দেখিয়ে বললো হাজার কোটি টাকার সেতু আসলে কতোটা দুর্বল। অথচ সে নাট খুলতে যে যন্ত্র ব্যবহার করেছিলো সেটির ভিডিও করেনি।  

জানা গেছে, পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট-বল্টু খুলে গ্রেফতার হওয়া মো. বায়েজিদ মৃধা বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। পটুয়াখালীতে থাকাকালে তিনি ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। তিনি জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি গাজী মো. আশফাকুর রহমান বিপ্লবের অনুসারী ছিলেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন, পদ্মা সেতু নিয়ে একটি মহল অনেকদিন ধরে অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। পদ্মা সেতুর স্ক্রু খোলার বিষয়টি তারই নমুনা। এটিকে একটি পরিকল্পিত এবং নাশকতা হিসেবেই দেখছেন তারা। তারা বলছেন যে, সেতু নিয়ে বিতর্ক তৈরি করে সরকারকে বেকদায় ফেলার পূর্ব কল্পিত চেষ্টার অংশই এটি।

মোটরসাইকেল নিয়ে সেতুর উপরে উঠে মাঝ পথে থেমে টিকটিক ভিডিও করাকে অতি উৎসাহী হিসেবে মেনে নিলেও সেতুতে উঠে নাট-বল্টু খোলা কখনোই মেনে নেওয়ার মতো নয় বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। এটি শুধু নিছক কোনো ঘটনাই নয়, একটি নাশকতা।

এদিকে  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি দেশের উন্নয়ন চায় না। বর্তমান সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে এই শক্তি নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। এমনকি তারা তাদের ছাত্রসংগঠনকে দিয়ে অ্যাজেন্ডা বাস্তবায়নে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র ও চেষ্টা করছে।

আসাদুজ্জামান খান আরও বলেন, এ সরকারের আমলেই দেশের সব বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়নসহ প্রভূত উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। কিন্তু যে অপশক্তিগুলো দেশের উন্নয়ন চায় না, তারা বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে ঈর্ষান্বিত হয়ে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

বিষয়ঃ উন্নয়ন

Share This Article


২৯ দিনে মেট্রোরেলের আয় ২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ওআইসির ৭ দেশের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ

ফোনালাপ ভাইরাল : বিএনপি নেতা আসিফ নিখোঁজ নাকি আত্মগোপনে?

পাঠ্যবই সংশোধনে পাঁচ সদস্যের দুই কমিটি গঠন

বিএনপি এখন মরণযাত্রায়: ওবায়দুল কাদের

রাজশাহীর জনসভায় প্রধানমন্ত্রী

স্বাধীনতার সুফল ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর জনসভার তিন ঘন্টা আগেই মাদ্রাসা মাঠ কানায় কানায় পরিপূর্ণ

প্রধানমন্ত্রীর জনসভা : স্লোগানে মুখর রাজশাহী নগরী

রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা আজ

প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত রাজশাহী

শান্তি রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে পুলিশ : প্রধানমন্ত্রী