অন্ধকার কূপে শ্রমিকদের বিন্দু বিন্দু ঘামে গড়ে ওঠা এক সেতুর গল্প

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ রাত ০৮:১৭, শুক্রবার, ২৪ জুন, ২০২২, ১০ আষাঢ় ১৪২৯

ভার বহন করবে বেশি; কিন্তু নির্মাণ উপকরণের ব্যবহার হবে কম, নকশাও হবে দৃষ্টিনন্দন ঠিক এসব কারণেই বিশ্বে জনপ্রিয় ট্রাস সেতু। পদ্মা সেতুও  নির্মিত হয়েছে এই প্রযুক্তিতে। ফলে বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম ট্রাস সেতু ‘পদ্মা’ ।

পৃথিবীর অন্যতম খরস্রোতা নদী পদ্মার বুকে একটি সেতুর পেছনে রয়েছে বিশাল এক কর্মযজ্ঞের গল্প। জার্মানি থেকে হ্যামার, লুক্সেমবার্গ থেকে রেলের স্ট্রিংগার, চীন থেকে ট্রাস, অস্ট্রেলিয়া থেকে পরামর্শক; এমনভাবে বহুদেশ থেকে প্রকৌশলী ও প্রকৌশল যন্ত্রপাতি এসেছে পদ্মায়।

২০ হাজার শ্রমিক-প্রকৌশলীর টুকরো টুকরো মেধা ও শ্রমে গড়ে উঠেছে বাংলাদেশের স্বপ্নের পদ্মা সেতু, যার নির্মাণকাজে সরাসরি জড়িত ছিলেন বাংলাদেশ এবং চীনের ৭০০ মেধাবী প্রকৌশলী। পদ্মার দুই পাড়ে কাজ করেছেন ১৩ হাজার শ্রমিক। তারা পদ্মার তলদেশে ৪২ তলা সমান গভীর কূপে ঝুঁকি নিয়ে খনন করে দেশকে দিয়েছেন স্বপ্নের পদ্মা সেতু।

পদ্মা সেতুর ৪২টা পিলারের নিচে আছে পাইল। সেই পাইল বসানোর জন্য প্রতিটি পিলারের স্থানে প্রথমে ৬টা করে স্টিলের বেড় দেওয়া কূপ বসানো হয়। ১০ ফুট ব্যাসের কূপ। তারপর সেই কূপের ভেতরে মাটি-পানি অপসারণ করা হয় পাম্প করে। তখন ৪২০ ফুট গভীর সেই অন্ধকার কূপের মধ্যে নামতে হতো বাংলার নির্মাণবীরদের।

এ বিষয়ে তাজুল ইসলাম নামে একজন নির্মাণ শ্রমিককে “অন্ধকার পাইলের মধ্যে নামতে ভয় করে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ভয় কিসের! কাজ করতে এসে ভয় কিসের! অন্যরা যেমন কাজ করে, আমরাও তেমনই কাজ করি।

পাইলে নামার সময় সব ধরনের নিরাপত্তাই থাকে বলে জানান রাজু নামে আরেক শ্রমিক। তিনি বলেন, পাইলের নিচের জায়গা বেশ ফাঁকা। তবে গরমে বেশি সময় পাইলের মধ্যে থাকা যায় না। শীতকাল, গরমকাল সব সময়ই পাইলের ভেতর গরম লাগে।

তাজুল, জাকির, মোস্তফার মতো অসংখ্য শ্রমিকের বিন্দু বিন্দু ঘামে গড়ে উঠছে পদ্মা সেতু। আর কয়েক ঘন্টা পরেই(২৫ জুন ২০২২) পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের গৌরব আর আত্মমর্যাদার প্রতীক এই পদ্মা সেতু। বাংলাদেশের কৃষক, শ্রমিক, জনগণের উপার্জিত টাকায় পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ আজ সম্পন্ন হয়েছে! কোনও বাধা ও ষড়যন্ত্রই বাধা হতে পারেনি এই বিশাল কর্মযজ্ঞের।
কাজেই ‘মানুষকে দাবায়া রাখতে পারবা না’—বঙ্গবন্ধুর এই কথা তো আমাদের আবারও উদ্বুদ্ধ করবেই।

Share This Article

শরিকদের সাথে প্রতারণা, ভরাডুবি হলে সব দায় বিএনপির !

গণতন্ত্র মঞ্চ: ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে

নির্বাচন কমিশনে চিরুনি অভিযান:সর্ষেই ভুত!

বিএনপির যুগপৎ আন্দোলন:সময় না পেরুতেই বেকায়দায় আন্দোলনের সঙ্গীরা!

যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচার প্রচেষ্টায় গুরুত্ত্ব দিচ্ছে না!

যেভাবে বিশ্ব রাজনীতিতে প্রভাব ফেলছে বাংলাদেশ!

দুই মার্কিন কর্মকর্তার ঢাকা সফর: নতুন উচ্চতায় বাংলাদেশ-মার্কিন সম্পর্ক

বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে বিদ্যুতের দাম কেমন?

কয়লার দামে আদানির কারসাজি: বিদ্যুৎ ক্রয়চুক্তির সংশোধন চায় বাংলাদেশ

উপনির্বাচনের প্রার্থী হিরো আলম নাকি বিএনপি?


আগামী সপ্তাহে সংসদীয় আসনগুলোর সীমানার খসড়া প্রকাশ: ইসি

বিশ্বের শীর্ষ ১০০ লিড সার্টিফাইড গ্রিন ফ্যাক্টরির অর্ধেকই বাংলাদেশে

তুরস্কে চিকিৎসক ও উদ্ধারকারী দল পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ

শেখ হাসিনার আমলে সড়ক ব্যবস্থার বৈপ্লবিক পরিবর্তন দৃশ্যমান: ওবায়দুল

ড. মসিউর রহমান ও ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী -ফাইল ছবি

রাষ্ট্রপতি পদে শেষ মুহূর্তের আলোচনায় মসিউর রহমান-শিরীন শারমিন

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে বেলজিয়ামের রানি

বাংলাদেশে বেলজিয়ামের রানি: পোশাক শিল্পের জন্য একটি মাইলফলক

তুরস্ক-সিরিয়ায় ভূমিকম্প: রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

মার্চে খুলে যাবে বঙ্গবন্ধু টানেল: মিলবে যেসব সুফল

সৌদি আরব বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু : স্পিকার

টাইম ম্যাগাজিন প্রতিবেদন:শেখ হাসিনা দেখিয়েছেন বাংলাদেশ পারে

ওষুধের লাইসেন্সহীন উৎপাদন-মজুদ-ভেজালে কঠোর সাজা