টেলিনরের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দিয়েও কেন তা করেননি ইউনূস

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ দুপুর ১২:০৪, বুধবার, ২৭ মার্চ, ২০২৪, ১৩ চৈত্র ১৪৩০
  • শান্তিতে নোবেল পেতে ড. ইউনূসকে সহায়তা করেছিল টেলিনর
  • তদবিরের কারণে অর্থনীবিদ হওয়া সত্বেও শান্তিতে নোবেল পান ইউনূস 
  • এসব ঘটনা ধাপাচাপা দিতেই  চুপসে যান ড. ইউনূস

গ্রামীণ টেলিকমের দীর্ঘদিনের সঙ্গী ও অংশীদার নরওয়ের টেলিনরের বিরুদ্ধে এক সময় মামলা করতে চেয়েছিলেন ড. মুহাম্মদ ইউনুস। কিন্তু টেলিনরের প্যাঁচে পড়ে সেই মামলা থেকে তাকে সরে আসতে হয়েছিল। 

কি এমন ঘটেছিলো তখন?

গ্রামীণফোনে নরওয়ের টেলিফোন কোম্পানি টেলিনরের মালিকানা ৬২ শতাংশ ও গ্রামীণ টেলিকমের মালিকানা ৩৮ শতাংশ। ১৯৯৬ সালে টেলিনর গ্রামীণফোনের বেশির ভাগ মালিকানা বাংলাদেশিদের কাছে হস্তান্তরের অঙ্গীকারসহ চুক্তি করেছিল। কিন্তু চুক্তি অনুযায়ী মালিকানা হস্তান্তর করেনি বরং চুক্তির কোনো আইনগত বৈধতা নেই বলে উড়িয়ে দেয় টেলিনর।  

২০০৮ সালে টেলিনরকে বাধ্য করতে নরওয়ে যান গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ড. ইউনূস। যাওয়ার আগে টেলিনরের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রকাশ্য হুমকিও দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নরওয়েতে গিয়েও উল্টো পায়ে ফেরত আসতে হয়। মামলা তো দূরের কথা, এই বিষয়ে আর কোনো উচ্চবাচ্য করেননি ড. ইউনূস।

কোন অদৃশ্য কারণে আইনি প্রক্রিয়া থেকে দূরে সরে গেলেন ড. ইউনূস?

আসলে কাঁচের দেয়ালে বসে অন্যের সাথে যুদ্ধ করা যায় না। আর তেমনটিই করেছিলেন ড. ইউনুস। জানা গেছে, গ্রামীণ ফোন কোম্পানি ১৩ বছর বয়সের শিশুশ্রমিক ব্যবহারের খবর নরওয়ের গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রকাশিত হয়। খবরে বলা হয়, ওই শিশু শ্রমিকরা টেলিনরের অংশীদার গ্রামীণফোনের অ্যান্টেনা টাওয়ার সরবরাহের কাজে নিয়োজিত।

ড. ইউনুস মামলা করতে চাইলে শিশু শ্রমের বিষয়টি সামনে নিয়ে আসে টেলিনর। আর শিশু শ্রমের বিষয়টি ধামাচাপা দিতেই মামলা থেকে পিছিয়ে আসেন ড. ইউনুস। এগুলো ছিল ভিতরের দৃশ্য। কিন্তু ততদিনে গণমাধ্যমে  গ্রামীণ ফোনে শিশুশ্রম ব্যবহৃত হওয়ার বিষয়টি প্রকাশিত হলে গণমাধ্যমকে বিভ্রান্ত করতে পরবর্তীতে এই শিশুশ্রমের দায় কোম্পানির সিংহভাগ শেয়ারের মালিক টেলিনরের ওপর চাপিয়ে আরেকবার টেলিনরের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দিয়েছিলেন ইউনুস, যদিও এবারও তাঁকে নরওয়ে কর্তৃক প্রদত্ত সেই নোবেল প্রাইজের ভারে সমঝোতায় আসতে হয় টেলিনরের সাথে।

সমালোচকরা বলছেন, দুই বছর আগেই শান্তিতে নোবেল পেতে ড. ইউনূসকে সহায়তা করেছিল টেলিনর। নোবেল শান্তি কমিটির কাছে টেলিনরের তদবিরের কারণে অর্থনীবিদ হওয়া সত্বেও ড. ইউনূসকে শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার দেয়া হয়েছিল। ফলে এসব ঘটনা জানাজানি হয়ে  যাওয়ার ভয়ে টেলিনরের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ার ঘোষণা দিয়েও চুপসে যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

বিষয়ঃ ড. ইউনূস

Share This Article

উত্তপ্ত মধুখালী: বহিরাগতদের আনাগোনা, পরিস্থিতি উত্তপ্ত করতে চাইছে কারা?

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিকে সাংবাদিকদের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

ছয়দিনের সফরে ব্যাংককে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

মার্কিন সিনেটে ইউক্রেন-ইসরায়েল সহায়তা বিল পাস

ফরিদপুর মধুখালীতে দুই ভাই হত্যার প্রতিবাদ: বড় ধরনের সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টির আলামত!

লোহিত সাগরে নৌকাডুবি, ৩৩ অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু

র‌্যাবের ১২তম মুখপাত্র হলেন কমান্ডার আরাফাত ইসলাম

প্রচণ্ড গরমে লোকালয়ে ঢুকছে সাপ, সতর্ক থাকার পরামর্শ

তীব্র দাবদাহ, লবণাক্ততা বৃদ্ধি সেচের পানিসংকট

তাপদাহে অস্বস্তিকর প্রহর কাটাচ্ছেন মানুষ


উপজেলা নির্বাচন: ফের গণবহিস্কার বিএনপিতে!

উপজেলা নির্বাচন: বিএনপিকে ধোঁকা দিল জামায়াত!

উপজেলা নির্বাচন বর্জন : লাভের চাইতে ক্ষতি বেশি বিএনপির!

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে সংকটে বিএনপি: প্রকাশ্য বিদ্রোহ!

ফের কূটনীতিকদের দৌড়ঝাঁপ: ব্রিটিশ ও মার্কিন কূটনীতিকদের তৎপরতা শুরু!

বিশ্ববাজারে ভোজ্য তেলের দাম কি কমেছে?

দেশের মানুষের ‘নিরাপত্তা’ নিয়ে ইউনুসের দুশ্চিন্তা: সোশ্যাল মিডিয়ায় হাস্যরস!

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় দিন ১৭ এপ্রিল

আন্দোলন নিয়ে শরিকদের কোনো দিক নির্দেশনা দিতে পারছে না বিএনপি!

কখনোই যাকাত-ফেতরা দেননা ড. ইউনুস!

বিএনপির আন্দোলনে জনসম্পৃক্ততা ছিলো না বলেই সরকার পতন হয়নি: শিবির সভাপতি

পুরস্কার নিয়ে ড. ইউনূসের চালাকিতে ইউনেস্কোর বিস্ময়!