নতুন চক্রান্তে প্রথম আলো, বাস্তবায়ন করছে দেশবিরোধী এজেন্ডা!

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ দুপুর ০১:৫১, শনিবার, ৮ এপ্রিল, ২০২৩, ২৫ চৈত্র ১৪৩০
  • এবার সরকার ঘোষিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ছড়ানো হচ্ছে বিভ্রান্তিকর সংবাদ।
  • নিজেদের অপকর্মের বিরুদ্ধে করা মানববন্ধনসহ কোনো সংবাদই প্রচার করেনি দৈনিকটি।
  • ধর্মীয় মূল্যবোধ রক্ষার কথা বলা রয়েছে ২৮ ধারায়।
  • প্রতিষ্ঠানটি কার এজেন্ডা বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে তা খতিয়ে দেখা উচিত।

বিতর্ক যেন পিছুই ছাড়ছে না প্রথম আলোর। ‘জাকিরকাণ্ডের’ রেশ কাটতে না কাটতেই আরেক মিথ্যাচার নিয়ে মেতে উঠেছে দৈনিকটি। এবার সরকার ঘোষিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে ছড়ানো হচ্ছে বিভ্রান্তিকর ও একপেশে সংবাদ। নিরপেক্ষ সংবাদ প্রচারের বিপরীতে একের পর এক পক্ষপাতমূলক ও নিজেদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে প্রকাশ করে যাচ্ছে মনগড়া সংবাদ।

জানা গেছে, সম্প্রতি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মিথ্যাচার বেশ ফলাওভাবে প্রচার করেছে দৈনিক প্রথম আলো। ৬ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টা ৫৩ মিনিটে ‘আপনারা কেউই বাঁচবেন না: মির্জা ফখরুল’- শিরোনামে একটি ভয়ভীতি প্রদর্শনমূলক বক্তব্য প্রচার করে পত্রিকাটির অনলাইন ভার্সন। এছাড়া গত ২৬ মার্চ ‘ভুয়া প্রতিবেদন’ প্রকাশের দায়ে করা মামলার পর থেকেই এই আইন নিয়ে লাগাতার মিথ্যা সংবাদ ছাপতে শুরু করে দৈনিকটি।

প্রথম আলোয় প্রকাশিত মির্জা ফখরুলের বক্তব্যে বলা হয়, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এখনও অনেকে গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন না। যে জাতি নিজে উঠে দাঁড়াতে পারে না, সে জাতিকে কে দাঁড় করাবে। এ মামলায় সাংবাদিকরা কেউ বাঁচবেন না বলেও হুঁশিয়ারি দেন বিএনপির এই মহাসচিব।’

অথচ একই ইস্যুতে (ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন) আইনের ব্যত্যয় ঘটিয়ে দেশের স্বাধীনতাকে কটাক্ষ করে নিজেদের অপকর্মের বিরুদ্ধে করা মানববন্ধনসহ কোনো সংবাদই প্রচার করেনি দৈনিকটি। ইচ্ছে করেই আলোচিত এই মানববন্ধনের সংবাদকে তারা এড়িয়ে গেছে, যা নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার পরিপন্থী।

অন্যদিকে  গত ৬ এপ্রিল বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে সরকারের কাছে যে সুপারিশমালা পাঠিয়েছিলো জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের দফতর, যেখানে ২১ ও ২৮ ধারা পুরোপুরি বাতিল এবং আটটি সংশোধনের কথা বলা হয়েছিল। এর মধ্যে ২১ ধারায় মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জাতির পিতা, জাতীয় সংগীত বা জাতীয় পতাকার মর্যাদা রক্ষার কথা বলা হয়েছে। আর ধর্মীয় মূল্যবোধ রক্ষার কথা বলা রয়েছে ২৮ ধারায়। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ধর্মীয় মূল্যবোধ রক্ষায় এই দুই ধারা কোনোভাবে বাতিল করা যাবে না জেনেও দৈনিকটি ওই সুপারিশ মালার দোহাই দিয়ে এসব ধারার বিপক্ষে বিভিন্ন মনগড়া (জাকিরকাণ্ডের মতো টেবিল মেড) সংবাদ ও কলাম প্রকাশ করে যাচ্ছে। অথচ নিরপেক্ষ সংবাদ প্রচারের শপথ (ঘোষণাপত্র) নিয়ে ডিক্লারেশন পাওয়া এই পত্রিকাটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও এর ধারাগুলোর প্রয়োজনীয়তা নিয়ে কারো মতামত কলাম বা এর স্বপক্ষে অনুষ্ঠিত কোনো সংবাদও প্রচার করেনি বা ইচ্ছে করেই এড়িয়ে গেছে।

সুপ্রিম কোর্টের একজন আইনজীবী বলেন, দেশে প্রথম আলো ছাড়াও অনেক সংবাদমাধ্যম রয়েছে। অনিয়ম করলে যে কারো বিরুদ্ধেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা হতে পারে। কোন আইনে কী শাস্তি হবে তা আদালতের কাজ। কিন্তু কোনো সংবাদমাধ্যম কথা না বললেও প্রথম আলোই কেন এই আইন নিয়ে কথা বলছে এবং একপেশে সংবাদ প্রচার করে আসছে তা বুঝে আসছে না। প্রতিষ্ঠানটি কার এজেন্ডা বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে তা খতিয়ে দেখা উচিত।

বিষয়ঃ বাংলাদেশ

Share This Article


আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা শিক্ষার্থীদের: হার্ড লাইনে যেতে পারে সরকার!

কোটা আন্দোলনের নেতা রাফি: বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন মুক্তিযোদ্ধা কোটায়

সংবিধানের কোন ধারা বলে কোটা: বাতিল করলে তাদের কী হবে?

প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরে তিস্তা নিয়ে কেন আলোচনা হলো না?

চীন থেকে কি নিয়ে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী

ধর্ম চর্চা ও প্রচারণায় আওয়ামী লীগ সরকারের সাফল্য ঈর্ষণীয়, তবু কেন অপপ্রচার?

কোটা সংস্কার আন্দোলন:শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক জয়, তবু কেন কর্মসূচি?

রাজধানীর মোড়ে মোড়ে অবরোধ, পথে পথে ভোগান্তি

কোটা আন্দোলনের নাটাই শিবিরের হাতে: রাজপথ দখল করে নামাজ ও দলীয় সংগীত!

সক্রিয় মৌসুমি বায়ু, অতি ভারী বৃষ্টির আভাস

কোটা আন্দোলন: সুখবর দিলো উচ্চ আদালত, তবু শিক্ষার্থীদের প্রত্যাখ্যান!

কোটা বাতিলের পক্ষে আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছে সরকারই!