সাজানো গল্প-ছবি: প্রথম আলোর পুঁজি!

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ রাত ০৮:৫১, বৃহস্পতিবার, ৬ এপ্রিল, ২০২৩, ২৩ চৈত্র ১৪৩০
  • অবসর নেয়ার পর বেশকিছু টাকা পান তিনি।
  • গড়ে তোলেন সেমিপাকা বাড়িও।
  • তিন বিঘা জমিতেই করতেন চাষাবাদ।
  • দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের পাঁয়তারা করেছিল প্রথম আলো।

দৈনিক প্রথম আলো। সাজানো গল্প-ছবি আর বিতর্কিত সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমেই পার করলো দুই যুগ। সমালোচনার মুখেও পড়েছে বারবার; তবু ছাড়তে পারছে না বিতর্কিত কর্মকাণ্ড। এমনকি বিশেষ মহলের নজর কাড়তে যেকোনও জাতীয় নির্বাচনের আগে-পরে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য নিয়ে হাজির হয় দৈনিকটি। এবারও শিশুর হাতে টাকা দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের পাঁয়তারা করেছিলেন এর সম্পাদকসহ কর্মরতরা। তবে আসল রহস্য বেরিয়ে আসায় সুবিধা নিতে পারেননি কেউ।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে-পরেও কয়েকটি বিতর্কিত সংবাদ ছেপেছিল প্রথম আলো। ছাপানো হয়েছিল ফটো ফিচারও। এরই একটি বগুড়ার গাবতলীর আজিজার রহমানের ‘হালচাষের ছবি’। ২০১৪ সালের ২২ ডিসেম্বর 'হালের গরু না থাকায়' শিরোনামে একটি ছবি প্রকাশ করেছিল দৈনিকটি। গরু না থাকায় কাঁধে জোয়াল নিয়ে আজিজার রহমান নিজের দুই ভাতিজাকে নিয়ে হাল চাষ করছেন বলে ফটো ফিচারটিতে তুলে ধরা হয়েছিল। অথচ তথ্যটি ছিল পুরোপুরি মিথ্যে।

তথ্যমতে, জয়পুরহাট চিনিকলে চাকরি করতেন আজিজার রহমান। অবসর নেয়ার পর বেশকিছু টাকা পান তিনি। ওই টাকায় ১৫ শতাংশ জমি কেনেন। গড়ে তোলেন সেমিপাকা বাড়িও। বাড়িতে চাষের জন্য ট্রাক্টর ছিল। অবসর সময় কাটাতে নিজের কেনা তিন বিঘা জমিতেই করতেন চাষাবাদ।

বেশ ভালোভাবেই চলছিল আজিজার রহমানের সংসার। স্ত্রী, এক ছেলে আর তিন মেয়ে নিয়ে সুখেই দিন কাটাচ্ছিলেন তিনি। অথচ তাকে অসচ্ছল পরিবারের কাতারে নিয়ে ছবি প্রকাশ করে প্রথম আলো। ঘটনার দিন সহজ-সরল মনেই সাংবাদিককে ছবি তোলার অনুমতি দিয়েছিলেন আজিজার রহমান। কিন্তু নিজেদের স্বার্থ হাসিলে সঠিক তথ্য গোপন করে মিথ্যে ক্যাপশন দিয়ে ছবিটি প্রকাশ করা হয়। ফলে সামাজিকভাবে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছিল তাকে।

মূলত ২০১৪ সালে যৌথভাবে বোরো ধান চাষ শুরু করেছিলেন আজিজজার রহমান ও তার ছোট ভাই আবুল ফজল। ২০১৪ সালের ২২ ডিসেম্বর ট্রাক্টরে ত্রুটি দেখা দেয় আজিজার রহমানের। সেদিন জমিতে চাষ দেয়াও জরুরি ছিল, কিন্তু নিয়মিত ট্রাক্টরে চাষ করেন বিধায় হালচাষের বিকল্প গরুও ছিল না। তাই বাধ্য হয়ে পাশের বাড়ির লাঙ্গল ধার করেন। তবে উপযুক্ত গরু জোগাড় করতে না পারায় ভাতিজাদের নিয়ে নিজেরাই লাঙ্গল টানা শুরু করেন। আর এই মোক্ষম সুযোগটিই নিয়েছিল প্রথম আলোর ফটোগ্রাফার।

এখানেই শেষ নয়, ২০১৮ সাল তথা একাদশ সংসদ নির্বাচন ঘিরেও বিতর্কের মুখে পড়েছিল এই সাংবাদমাধ্যমটি। ধর্ম নিয়ে বিকৃত কার্টুন প্রকাশের জেরে বায়তুল মোকাররমের খতিবের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান।

প্রথম আলোর এমন কর্মকাণ্ড নিয়ে অপরাধ বিশ্লেষকরা বলছেন, নিষিদ্ধ বা বিতর্কিত জিনিসের প্রতি সব শ্রেণির মানুষেরই আগ্রহ থাকে বেশি। বিতর্কিত কোনো বিষয় সামনে আনলে সমালোচনা হয়, মানুষের মুখে মুখেও থাকে। আর এমন নীতিকেই বেছে নিয়েছে প্রথম আলো। যখনই তাদের নিয়ে হইচই কমে, কাটতি কমে যায় তখনই বিভ্রান্তিমূলক কোনো ইস্যুর বিস্ফোরণ ঘটায় পত্রিকাটি।

বিষয়ঃ বাংলাদেশ

Share This Article


রাজাকার পরিচয় বহনকারীদের বাংলা ছাড়ার দাবি সারাদেশে

দেশে দেশে কোটা ব্যবস্থা

দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপিটের ছাত্রদের মেধার এতো অধঃপতন!

শিক্ষার্থী আন্দোলন ফায়দা লোটার আত্মঘাতী কৌশল

যুক্তরাজ্যে থাকতে হলে রাজনীতি ছাড়তে হবে তারেককে!

কোটা আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে মামলা হলো যেকারণে

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে কোটা আন্দোলনকারীদের আহবান বিএনপির!

প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর: প্রত্যাশার চাইতে প্রাপ্তি কম কিসে?

কোটা বিরোধী আন্দোলনের নেতৃত্ব নিয়ে বিবিসির চাঞ্চল্যকর তথ্য!

কোটা আন্দোলন: লিমিট ক্রস করলে কঠোর হবে সরকার!

কোটা সুবিধায় ভর্তি ও চাকুরী করেও কোটা বাতিল চাইছেন তারা!

পুলিশের গুলিতে শিক্ষার্থী নিহতের ফেক নিউজ: উত্তেজনা বৃদ্ধির কৌশল!