১২টি ইসলামি ও সমমনা দলের আওয়ামী লীগের পক্ষে জোট গঠন!

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সন্ধ্যা ০৭:৫৯, রবিবার, ২ এপ্রিল, ২০২৩, ১৯ চৈত্র ১৪৩০

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে কদর বাড়ছে ইসলামি দল ও সংগঠনের। নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ  ও মাঠের বিরোধী দল বিএনপি এমনকি জাতীয় পার্টিও চেষ্টা করছে তাদের কাছে টানার। বর্তমানে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটে ইসলামি দল হিসেবে রয়েছে 'বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন।' তবে  এবার তাদের সাথে আরও একাধিক ইসলামি দল জোটবদ্ধ হবার উদ্যোগ চলছে বলে জানা গেছে।


 

সূত্রমতে, অন্তত ১২টি ইসলামি ও সমমনা দল ঈদের আগেই আওয়ামী লীগের পক্ষে জোট গঠন করতে যাচ্ছে । গত ৪ মার্চ রাজধানীর তোপখানা রোডের বাংলাদেশ শিশুকল্যাণ পরিষদ কেন্দ্রের কন্ফারেন্স হলে আয়োজিত এক সভায় এ জোট গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়।সেখানে স্ব স্ব ইসলামী দলগুলোর শীর্ষ নেতারা দফায় দফায় জোট গঠন নিয়ে বৈঠক করেন। একাধিক বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত এসেছে পবিত্র মাহে রমজানের আগেই তারা নতুন জোট গঠন বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা দেবেন।

সরকার সমর্থিত ১২টি ইসলামী দলের মধ্যে  রয়েছে, বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশ, গণতান্ত্রিক ইসলামিক পার্টি, বাংলাদেশ জনদল, নেজামে ইসলাম বাংলাদেশ, জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ, দেশপ্রেমিক জনতা দল, পিপলস জাস্টিস পার্টি, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, জাকের পার্টি, ইসলামিক ফ্রন্ট, বাংলাদেশ তরীকত ফ্রন্টসহ রয়েছে আরও ১টি সমমনা দল।

নতুন জোট প্রসঙ্গে ‘বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোট’র একাংশের চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরী বলেন, আগামী দিনের জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশের মানুষকে যাতে ভালো রাখতে পারি দেশের মানুষের সার্বিক উন্নয়নে দেশের মানুষের কল্যাণে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে চাই। এ জন্যই জোট গঠন করা হচ্ছে। এখন এই ঐক্য সৃষ্টি করা সময়ের দাবী।

তিনি আরও বলেন, এ জোটের মাধ্যমে শুধুমাত্র নির্বাচন না, ধর্মীয় মূল্যবোধ অসাম্প্রায়িক ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবার প্রত্যয় থাকবে। বিভিন্ন আলেম ওলামা সুফি মাশায়েখরা জোটে থাকবেন বলেও জানান জোটের এই নেতা।

বর্তমানে দেশে নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের সংখ্যা ৩৯টি। এরমধ্যে ১২টিই হচ্ছে ইসলামি দল। নিবন্ধনের বাইরে আরও অনেক ধর্মভিত্তিক ইসলামি দল এবং সংগঠন রয়েছে, যার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। ইসলামি দলগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন আওয়ামী লীগের সঙ্গে এবং মুসলিম লীগ বিএনপির সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে আছে। বাকি ১০টি দলই স্বতন্ত্র অবস্থানে থেকে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

নতুন জোট প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও ১৪ দলীয় জোটের প্রধান সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু বলেন,  নির্বাচন এলেই আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ধর্ম নিয়ে নানা অপপ্রচার হয় সেটি যাতে না হয় সে চেষ্টা থেকেই ইসলামপন্থী অনেক দলের সাথে সুসম্পর্ক তৈরিতে আগ্রহী আওয়ামী লীগও। দেশের ৯০ ভাগেরও বেশি মানুষ মুসলিম। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগকে নিয়ে কেউ যাতে কোনো ভুল বার্তা না দিতে পারে সেটা তো দলকে খেয়াল রাখতেই হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা চাই নির্বাচনকে সামনে রেখে কেউ যেন ধর্মকে ব্যবহার করে আওয়ামী লীগের ক্ষতি করতে কোনো উন্মাদনা তৈরি না করতে পারে। এ কারণে ইসলামপন্থী যেসব দল যারা সত্যিকার অর্থেই ইসলামকে ভালোবাসে, তারা পাশে থাকলে ধর্ম নিয়ে বিভ্রান্তি রোধ করা সম্ভব হবে।

Share This Article


আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা শিক্ষার্থীদের: হার্ড লাইনে যেতে পারে সরকার!

কোটা আন্দোলনের নেতা রাফি: বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন মুক্তিযোদ্ধা কোটায়

সংবিধানের কোন ধারা বলে কোটা: বাতিল করলে তাদের কী হবে?

প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরে তিস্তা নিয়ে কেন আলোচনা হলো না?

চীন থেকে কি নিয়ে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী

ধর্ম চর্চা ও প্রচারণায় আওয়ামী লীগ সরকারের সাফল্য ঈর্ষণীয়, তবু কেন অপপ্রচার?

কোটা সংস্কার আন্দোলন:শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক জয়, তবু কেন কর্মসূচি?

রাজধানীর মোড়ে মোড়ে অবরোধ, পথে পথে ভোগান্তি

কোটা আন্দোলনের নাটাই শিবিরের হাতে: রাজপথ দখল করে নামাজ ও দলীয় সংগীত!

সক্রিয় মৌসুমি বায়ু, অতি ভারী বৃষ্টির আভাস

কোটা আন্দোলন: সুখবর দিলো উচ্চ আদালত, তবু শিক্ষার্থীদের প্রত্যাখ্যান!

কোটা বাতিলের পক্ষে আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছে সরকারই!