মানবদেহে বঙ্গভ্যাক্স পরীক্ষার অনুমতি দিলো ঔষধ প্রশাসন

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ সন্ধ্যা ০৬:২৩, রবিবার, ১৭ জুলাই, ২০২২, ২ শ্রাবণ ১৪২৯

বাংলাদেশের গ্লোব বায়োটেকের তৈরি করা করোনাভাইরাসের টিকা বঙ্গভ্যাক্স মানুষের শরীরে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমতি দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

রোববার (১৭ জুলাই) অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. ইউসুফ স্বাক্ষরিত চিঠিতে মানুষের শরীরে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের এই অনুমতি দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক (কোয়ালিটি অ্যান্ড রেগুলেটরি) ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন গণমাধ্যমকে জানান, আমরা বঙ্গভ্যাক্স আজকেই মানবদেহে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমতি পেয়েছি।

কখন থেকে এই পরীক্ষা শুরু করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখনো এ বিষয়ে আলোচনা হয়নি। আমরা পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে আপনাদের জানাবো।

২০২০ সালের ২ জুলাই দেশে প্রথমবারের মতো করোনার টিকা আবিষ্কারের ঘোষণা দেয় গ্লোব বায়োটেক। এর প্রায় সাড়ে তিন মাসের মাথায় ১৫ অক্টোবর গ্লোব বায়োটেকের তিনটি টিকাকে অনুমোদনপ্রার্থী তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

এরপর গত বছরের ১৭ জানুয়ারি বঙ্গভ্যাক্সের প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের নীতিগত পরীক্ষার জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলের (বিএমআরসি) কাছে প্রটোকল জমা দেওয়া হয়। এরপর বিএমআরসির চাহিদা অনুযায়ী সংশোধিত প্রটোকল জমা দেওয়া হয় ১৭ ফেব্রুয়ারি।

পরে ২০২১ সালের ২২ জুন বিএমআরসি মানবদেহে বঙ্গভ্যাক্সের পরীক্ষা চালানোর অনুমতি দেয়। যদিও এর আগে বানর বা শিম্পাঞ্জির দেহে পরীক্ষা করার শর্ত দেওয়া হয়। গত বছরের ১ আগস্ট প্রতিষ্ঠানটি বানরের দেহে ট্রায়াল শুরু করে, যা শেষ হয় ২১ অক্টোবর।

বিষয়ঃ বাংলাদেশ

Share This Article


প্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব ও গাম্বিয়া সফর বাতিল

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় দিন ১৭ এপ্রিল

দেশজুড়ে বইছে তাপপ্রবাহ, গরম আরও বাড়ার আভাস

মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

মুজিবনগর দিবসে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ

বৃষ্টি হলেও কমছে না গরম

টেস্ট পরীক্ষার নামে বাড়তি ফি নেয়া যাবে না: শিক্ষামন্ত্রী

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যুগোপযোগী কারিকুলাম প্রণয়ন করতে হবে

অনিবন্ধিত অনলাইনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবো: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

পণ্যের দাম ঠিক রাখতে নেয়া হচ্ছে বিকল্প ব্যবস্থা: প্রতিমন্ত্রী

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যুগোপযোগী কারিকুলাম প্রণয়ন করতে হবে