এরশাদের স্মৃতিচারণ:বিএনপি ক্ষমতায় এলে তারেক প্রধানমন্ত্রী হবে-এই কথায় মানুষ আতঁকে ওঠে!

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ দুপুর ০২:৪৫, সোমবার, ৬ মার্চ, ২০২৩, ২১ ফাল্গুন ১৪২৯

মৃত্যুর পূর্বে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় পার্টির এক জনসভায় সে ঘটনার স্মৃতিচারণ করে এরশাদ বলেছিলেন, 'তারেক কম্বল পেঁচিয়ে আমাকে লাঠিপেটা করা হবে বলে বলেছিলো।এখন দেশের মানুষ দেখছে কার অবস্থা কী হয়েছে। এখন দেশের জনগণই দেখছে কে কোথায় আছে।’

 

Uncle if you don’t come tomrow, then we don’t need you. Remember this word.
চাচা কালকে যদি না আসেন, তাহলে আপনাকে আর আমার দরকার নাই। কথাটা মনে রাখবেন।

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সাথে এভাবেই কথা গুলো বলেছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। নির্বাচনের আসন ভাগাভাগি নিয়ে কথাবার্তার এক পর্যায়ে এ কথা বলেন তারেক রহমান। বাবার বয়সী একজন ব্যক্তির সঙ্গে এমন ব্যবহারকে চরম বেয়াদবী হিসেবে আখ্যা দিয়েছিলেন প্রয়াত ও সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদ।

এরশাদ বলেন, ২০০২ কিংবা ২০০৩ এর কথা। আমাকে অফার দেওয়া হলো বিএনপির রাজনীতি করতে। কথা বলতে খোদ তারেক আমার বাসায় আসেন। আমার স্ত্রী ছিল পাশে। তখন আমি তাকে একটি কাগজ দিয়ে বললাম, এখানে যেসব শর্ত রয়েছে তা পূরণ করলে আমি যেতে পারি।

প্রথম কথা, কয়টি আসন তুমি আমাকে দিবে? আমার এমপিদের কত টাকা করে তুমি দিবে?
জবাবে তারেক বললো, আঙ্কেল আপনাকে ১৮টি আসন দেওয়া হবে। কারণ জামায়াতের আসন ছিল ১৮টি। এর বেশি আসন আমাকে দিবে না। আর এমপিদের ২০ লক্ষ করে টাকা দেওয়া হবে। আমি বলেছিলাম আমিতো ৬০টি আসন চেয়েছিলাম।

তারেক এও বলেছে, এই ২০ লক্ষ টাকা সরাসরি এমপিদের হাতে দেওয়া হবে। আমি ও আমার স্ত্রীর কারও হাতে এ টাকা দেওয়া হবে না। কারণ টাকা দিলে আমরা যদি না দেই!

এরশাদ বলেন, তারেককে আমি বলেছিলাম আগামীকালকে প্রেসিডিয়াম মিটিং ডেকে আমি আমার কথাগুলো বলবো। সবাই যদি রাজী হয় তাহলে আমি রাজী।

এই কথা বলার সাথে সাথেই এই ছেলে আমার মুখের উপর বলেছে, Uncle if you don’t come tomrow, then we don’t need you. Remember this word.
ক্ষুব্ধ হয়ে এরশাদ বলেন, আমার মুখের উপর এ কথা বলেছে তারেক। এটা ছিলো চরম বেয়াদবি।

এরশাদ বলেন, এরপর তারেক আমাকে মেসেজ দিয়ে বললো আপনাকে ২০ হাজার ডলার দেওয়া হচ্ছে আপনাকে এ দেশ ছেড়ে চলে যেতে হবে। এরপর আমি চার-পাঁচদিন গা ঢাকা দিয়ে ছিলাম। তারপর ২০০৩ সালের ১৮ই ডিসেম্বর, আওয়ামী লীগের বিশাল জনসভায় আমি হাজির হই। সেখানে আমাকে নিরাপদে রাখার নিশ্চয়তা দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, মৃত্যুর পূর্বে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় পার্টির এক জনসভায় সে ঘটনার স্মৃতিচারণ করে এরশাদ বলেছিলেন, 'তারেক কম্বল পেঁচিয়ে আমাকে লাঠিপেটা করা হবে বলে বলেছিলো।এখন দেশের মানুষ দেখছে কার অবস্থা কী হয়েছে। এখন দেশের জনগণই দেখছে কে কোথায় আছে।'

এরশাদ আরও বলেন, তারেক রহমান এখন মূর্তিমান আতঙ্কের নাম। তার নাম শুনলে মানুষ ভয়ে কেঁপে ওঠে। বিএনপি ক্ষমতায় এলে তারেক রহমান প্রধানমন্ত্রী হবে-এই কথা ভাবলে মানুষ আতঁকে ওঠে।

Share This Article


জিয়া-খালেদা ভারতের সঙ্গে বৈরী সম্পর্ক করে দেশের ক্ষতি করেছেন: কাদের

রাজধানীর দুই সিটির বর্জ্য অপসারণ

৯ অঞ্চলে দুপুরের মধ্যে বজ্রসহ বৃষ্টির আভাস

পতন ঘটতে পারে সরকারের, মোদির জোটের লোকজন যোগাযোগ করছেন: রাহুল

আক্রান্ত হলে আমরাও জবাব দেবো, সেন্টমার্টিন প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের

২০০ মেট্রিক টন খাদ্যপণ্য নিয়ে সেন্টমার্টিনে পৌঁছাল জাহাজ

হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু

বর্তমানে খাদ্যের অভাবে মানুষ মারা গেছে এমন নজির দেশে নেই: খাদ্যমন্ত্রী

মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে চীনকে টপকে দ্বিতীয় বাংলাদেশ

ঈদযাত্রার দ্বিতীয় দিনে স্বস্তিতে বাড়ি ফিরছে মানুষ

নাড়ির টানে ঘরে ফিরছে মানুষ

গোয়েন্দা নজরদারিতে টিকিট কালোবাজারিরা: র‍্যাব