লাল তালিকায় সরকারদলীয় এমপি যারা!

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ দুপুর ০১:৩১, বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ, ২০২৩, ১৭ ফাল্গুন ১৪২৯
  • নৌকা নিয়ে এমপি হয়ে আর পা রাখেননি এলাকায়।
  • এলাকায় যাননি মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্য।
  • এলাকায় না এসে দেখভালের দায়িত্ব দিয়েছেন আত্মীয়-স্বজন, শ্যালক, বোনজামাই, ভাই-ভাগিনাদের।
  • আগামী নির্বাচনে প্রার্থী পরিবর্তনের সম্ভাবনা অনেকটাই নিশ্চিত।

চলছে নির্বাচনী বছর। তাই ভোট-ভোটার আর জনগণ নিয়ে আলোচনায় মুখর রাজনীতির মাঠ। এরই মধ্যে প্রস্তুতি শুরু করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। তবে এবার প্রার্থী মনোনয়নে অনেকটাই কঠোর অবস্থানে দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এজন্য শুরু হয়েছে নির্বাচনী এলাকাবিচ্ছিন্ন এমপিদের তালিকা। এ তালিকায় অনেক হেভিওয়েট এমপি-মন্ত্রীও রয়েছেন বলে জানিয়েছে একটি সূত্র।

সূত্রমতে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে দীর্ঘদিন ধরেই দলীয় এমপিদের এলাকামুখী হওয়ার নির্দেশনা দিয়ে আসছিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে সরকারের উন্নয়ন প্রচারে জোর দিয়েছেন তিনি। তবে এসব নির্দেশ উপেক্ষা করেছেন বেশিরভাগ এমপি। এমনই কয়েকজন এমপির বিরুদ্ধে ভয়াবহ তথ্য এসেছে বিগত কয়েকটি জরিপে। গত চার বছরে একদিনের জন্যও এলাকায় যাননি মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্য; এমন তথ্যও মিলেছে।

তৃণমূল নেতারা জানান, অনেকেই নৌকা নিয়ে এমপি হয়ে আর পা রাখেননি এলাকায়। কেউ কেউ বছরে এক-দুবার এলেও মিটিং শেষে ওইদিনই ঢাকায় ফিরেছেন। কখনো দলীয় কার্যালয়েও পা রাখেননি। তৃণমূল নেতা-কর্মীদের এড়িয়ে চলেন তারা। নৌকা হলেই পাস করা যায় বলে তাদের ধারণা। এজন্য প্রয়োজন পড়ে না দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীদের।

তারা আরও জানান, কোনো কোনো এমপি এলাকায় না এসে দেখভালের দায়িত্ব দিয়েছেন আত্মীয়-স্বজন, শ্যালক, বোনজামাই, ভাই-ভাগিনাদের। এমন এমপিদের কেউ কেউ মন্ত্রিসভায়ও রয়েছেন।

শুধু তৃণমূল নেতা-কর্মীই নয়, এমন কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সিনিয়র একাধিক নেতাও। তারা জানান, মন্ত্রিসভার অনেক সদস্যই দলের  নিজ এলাকার নেতৃবৃন্দের,এমনকি  সিনিয়র নেতাদের  ফোন ধরার সময় পান না। তারা ব্যস্ততা দেখান। একাধিকবার ফোন করলে রিসিভ করেন  মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর এপিএসরা।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী ফোরামের একাধিক নেতা জানান, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বচ্ছ ভাবমূর্তির প্রার্থীর ওপর এবার ভরসা রাখতে চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাই আগামী নির্বাচনে প্রার্থী পরিবর্তনের সম্ভাবনা অনেকটাই নিশ্চিত। কারণ বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িত এমপিদের বাদ দিতে চায় আওয়ামী লীগ।

দলীয় সূত্র জানিয়েছে, বিতর্কিত এমপিদের পরিবর্তন না করে আবারও মনোনয়ন দিলে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি যেমন নষ্ট হবে, তেমনই ওই প্রার্থীদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকতে হবে। সেজন্য যাদের কারণে দলের ও সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে তারা ‘শাস্তিস্বরূপ’ আগামী নির্বাচনে নৌকার টিকিট পাবেন না।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের প্রধান, দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণতা ও দক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ যেভাবে এগিয়েছে, তেমনি দলকেও এগিয়ে নিতে চান তিনি। তাই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে যারা জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য, জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ত, পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি এমন সম্ভাব্য ব্যক্তিদেরই নৌকা দেবেন বলে ধারণা। কোনোভাবেই এলাকা বিচ্ছিন্ন, অজনপ্রিয় ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেয়া হবে না’।

দল ও সরকারের নীতিনির্ধারণী ফোরামের একাধিক সূত্র জানায়, মন্ত্রী-এমপিদের কর্মকাণ্ডের তথ্য সংগ্রহের এ কাজটি নিয়মিতই করা হয়। তাদের কর্মকাণ্ড মনিটরিং অতীতেও হয়েছে। কিন্তু অতীতের সব রেকর্ড ভেঙেছেন বর্তমান সংসদে সরকারি দলের অনেক এমপি। তারা বিএনপি-জামায়াতের নেতাদের আওয়ামী লীগে এনে যেমন পুনর্বাসন করেছেন, তেমনি আত্মীয়-স্বজনকে নিয়ে গড়ে তুলেছেন পৃথক বলয়। তাদের ভেদ করে মন্ত্রী-এমপিদের কাছে যেতে পারেন না আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের ত্যাগী নেতা-কর্মীরা। তাই তাদের মনোনয়ন না দিতে এবার কঠোর সিদ্ধান্ত নিচ্ছে দল।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ড. সুলতানা শফি বলেন, ‘যার এলাকায় সুনাম রয়েছে, জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ত, দলীয় নেতা-কর্মীর সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে- এমন ব্যক্তিকেই দলীয় মনোনয়ন দেয়া উচিত। কারণ সৎ, যোগ্য ও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিকে মনোনয়ন দিলেই সহজে বিজয় লাভ করা সম্ভব হবে।’

Share This Article


প্রসঙ্গ বাজেট: খালেদা জিয়াকেও কি দুর্বৃত্ত বলবে বিএনপি?

বৈধ আয়ে কর ৩০%, কালো টাকায় ১৫% কেন

বিএনপি সরকার কেন কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়েছিল?

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ কেন দেয়া হয়

হঠাৎ অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান হাইকমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ কেন ফখরুলের?

বাজেট সমালোচনা যুগেযুগে: কেউ কারো বাজেটের প্রশংসা করেনি!

ছয়দফা কেন বাঙালির মুক্তির সনদ

ভারতে বিজেপি দুর্বল হওয়ায় বিএনপি খুশি, আওয়ামী লীগও খুশী!

জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট ইস্যু পেয়েও সুযোগ হারাচ্ছে বিএনপি!

বন্ধ করে দেয়া ১৪৮ ফেসবুক আইডি বা পেজ এর মালিক কে?

কার অভিশাপের কথা বললেন ড. ইউনুস?

ইউরোপ-আমেরিকার চেয়ে বাংলাদেশে নিত্যপণ্যের দাম কোনোভাবেই বেশি নয়!