আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক: আলোচনায় ৫ জন

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ বিকাল ০৫:২৫, বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০২২, ৩০ আষাঢ় ১৪২৯

আগামী ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। এই কাউন্সিলে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হলো সাধারণ সম্পাদক পদ। কারণ আওয়ামী লীগের প্রাণভোমরা হলেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। তার কোনো বিকল্প নেই। কাজেই যেকোনো বিচারে শেখ হাসিনা যে আবার আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে পুনর্নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন এটি নিয়ে কোনো আলোচনা নাই।

বরং এর ব্যতিক্রম হলে মাঠ পর্যায়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা তা মেনে নেবে না। শেখ হাসিনাকে যেকোনো মূল্যে সভাপতি পদে পুনর্বহাল রাখতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করেন যে, শেখ হাসিনার বিকল্প শুধু শেখ হাসিনাই। যতদিন তিনি জীবিত থাকবেন ততদিন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে তিনিই থাকবেন। সে কারণে আওয়ামী লীগের কাউন্সিল গুলোতে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হয় দলের সাধারণ সম্পাদক পদ। আর এই সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে নানামুখী আলোচনা এখন তুঙ্গে।

আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের দুই মেয়াদ পূর্ণ হয়েছে। তৃতীয় মেয়াদে তিনি আবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হতে যাচ্ছেন এমন গুঞ্জন এখন বেশ জোরালোভাবে উচ্চারিত হচ্ছে। বিশেষ করে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে আলোচনা হচ্ছে যে, তিনি হয়তো সাধারণ সম্পাদক পদে হ্যাট্রিক করবেন। আর এটি যদি হয় তাহলে সেটি হবে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ইতিহাসে বিরল ঘটনা। এর আগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাড়া কেউই পরপর তিনবার সাধারণ সম্পাদক হতে পারেননি। ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে কথা রয়েছে। মন্ত্রী এবং দলের সাধারণ সম্পাদক পদে একসাথে দায়িত্ব পালন করা কতটা যৌক্তিক, সে প্রশ্নও দলের ভেতর আলোচনা হচ্ছে। তাছাড়া দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর দলের ভেতর নানা ধরনের কোন্দল এবং বিরোধ প্রকাশ্য হয়েছে। দলের চেইন অব কমান্ড ভেঙেছে বলে অনেকে অভিযোগ করেন। এরকম পরিস্থিতির মুখেও ওবায়দুল কাদের সাধারণ সম্পাদক হতে পারেন শুধুমাত্র একটি হিসেবে, তা হলো আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ সভাপতি হয়তো বড় ধরনের কোনো পরিবর্তন আনতে চাইবেন না। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি সাধারণ সম্পাদক হতে পারবেন কিনা সেটি এখনও নিশ্চিত নয়।

সাধারণ সম্পাদক পদে দ্বিতীয় আলোচিত ব্যক্তির নাম হলো জাহাঙ্গীর কবির নানক। জাহাঙ্গীর কবির নানক এই মুহূর্তে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রার্থী। অনেকেই মনে করেন যে, নেতাকর্মীদের সবচেয়ে পছন্দের সাধারণ সম্পাদক হলেন জাহাঙ্গীর কবির নানক। জাহাঙ্গীর কবির নানক গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি। মনোনয়ন না পাওয়াটা তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের জন্য শাপে বর হয়েছে। মনোনয়ন না পেয়ে তিনি আওয়ামী লীগ সভাপতির আরও আস্থাভাজন-ঘনিষ্ঠ হন। পরবর্তী পর্যায়ে তাকে প্রেসিডিয়ামে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এখন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের অন্যতম প্রাণভোমরা বিবেচনা করা হয় জাহাঙ্গীর কবির নানককে। তিনি দলের সভাপতির নির্দেশে দল পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। তৃণমূল থেকে উঠে আসা এই ত্যাগী নেতার সাধারণ সম্পাদক না হওয়াটা হবে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে একটি বড় বিস্ময় ঘটনা। তবে আওয়ামী লীগের নেতারাই মনে করেন যে, জনপ্রিয় প্রার্থীরা প্রায়ই দলের সাধারণ সম্পাদক হতে পারেন না।

সাধারণ সম্পাদক পদে তৃতীয় আলোচিত নাম হলো ড. আব্দুর রাজ্জাক। ড. আব্দুর রাজ্জাক আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। আওয়ামী লীগের বাইরে তার একটা গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের তৃণমূল পর্যায়ে তার যোগাযোগ অনেকটাই কম। তবুও একজন ভদ্র রাজনীতিবিদ হিসেবে তার আলাদা একটা গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় ড. হাসান মাহমুদ। তিনি বর্তমানে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। অনেকটাই আওয়ামী লীগের মুখপাত্র পরিণত হয়েছেন তিনি। আওয়ামী লীগ সভাপতির বাইরে তিনি সবচেয়ে বেশি সরব বিরোধী রাজনৈতিক দলের সমালোচনার ক্ষেত্রে। আর এ কারণেই সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তার নাম ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে।

এসবের বাইরে চমক হিসেবে নাম আসছে খায়রুজ্জামান লিটনের। তিনি রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র। জাতীয় চার নেতার একজন এ এইচ এম কামরুজ্জামানের সন্তান। পরিচ্ছন্ন একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে তার আলাদা ইমেজ রয়েছে এবং জাতীয় চার নেতার প্রতি আওয়ামী লীগ সভাপতির আলাদা একটি আবেগ কাজ করে। তাছাড়া তিনি দীর্ঘদিনের ত্যাগী এবং পোড়খাওয়া একজন রাজনীতিবিদ। রাজনীতিতে তার কোনোরকম কলঙ্ক নেই। একজন শেখ হাসিনার সৈনিক হিসেবে তাঁর সুনাম রয়েছে। এ কারণেই অনেকে মনে করছেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হয়তো এবার আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে চমক হিসেবে আসবেন। ইতোমধ্যে জল্পনা-কল্পনা আরও উস্কে দেওয়া হয়েছে, যখন তাকে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক যেই হোন না কেন এই পাঁচজনের মধ্যে থেকেই হবে বলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মনে করছেন। তার বাইরে কিছু হলে সেটা হবে আওয়ামী লীগের জন্য একটা বড় বিস্ময়।

Share This Article

বাংলাদেশের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন আইএমএফের

নেপালের উপপ্রধানমন্ত্রীকে সরিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট

তারেকের বিরুদ্ধে রেমিট্যান্স গায়েবের অভিযোগ !

গোপনে নির্বাচনী সমঝোতা করছে বিএনপির হাইকমান্ড!

শরিকদের সাথে প্রতারণা, ভরাডুবি হলে সব দায় বিএনপির !

প্রধানমন্ত্রীর জনসভার উদ্দেশে মাদ্রাসা মাঠে আসছেন নেতাকর্মীরা

আমনে ভাসছে দেশ: বিঘা প্রতি কৃষকের মুনাফা ১৮ থেকে ২১ হাজার টাকা!

একদিকে আন্দোলন,আরেকদিকে নির্বাচনের জন্য প্রার্থী চূড়ান্ত বিএনপির!

গুজব কাটিয়ে ব্যাংকে আস্থা ফিরেছে সাধারণ মানুষের

ক্ষমতা ছাড়াই হাজার কোটির সম্পত্তি বিএনপি নেতা আমানের


মানুষের স্বপ্ন আওয়ামী লীগ সরকার বাস্তবে রূপ দিচ্ছে: তথ্যমন্ত্রী

বিএনপির যুগপৎ আন্দোলন:সময় না পেরুতেই বেকায়দায় আন্দোলনের সঙ্গীরা!

রাষ্ট্রদূত মুহিত জাতিসংঘ শান্তি বিনির্মাণ কমিশনের সহ-সভাপতি নির্বাচিত

শিলাবৃষ্টিসহ বজ্রঝড়ের পূর্বাভাস

বিশ্বজুড়ে কোভিডে আক্রান্ত ও মৃত্যু বেড়েছে

কোমর ভাঙলেও বিএনপির ষড়যন্ত্র থেমে নেই: তথ্যমন্ত্রী

নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতার পরিবর্তন হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রথমবারের মতো দেশে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন বিদেশি কূটনীতিকরা

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে সবাইকে কাজ করতে হবে: সমাজকল্যাণমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাদের মনোনয়নের ব্যাপারে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়

‘পাঠ্যবইয়ে যে তথ্য নেই, সেটা বলে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে’

টুইটারে ঝগড়ায় জড়ালেন কঙ্গনা-উরফি