১১ জুন : শেখ হাসিনার কারামুক্তি ও গণতন্ত্রের অভিযাত্রা

জামায়াত-বিএনপি সরকারের অপশাসনের বিরুদ্ধে দেশের সব পেশার মানুষ যখন ক্ষুব্ধ ও ঐক্যবদ্ধ সেসময় তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান ইয়াজউদ্দিন-ফখরুদ্দীন সরকার শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই। আর বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয় ৫৮ দিন পরে ৩ সেপ্টেম্বর।

সে সময় বিএনপি-জামায়াতের রাজনৈতিক অংশীদার মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ ইবরাহিম বলেছিলেন, ‘হাওয়া ভবন দুর্নীতির ওয়ান স্টপ সার্ভিস।’ অথচ সেই সরকারের প্রধানকে আগে গ্রেপ্তার না করে শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

দীর্ঘ ১১ মাস কারাবন্দি থাকার পর ২০০৮ সালের ১১ জুন সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করেন শেখ হাসিনা।আর এই দিনটিকে শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

উল্লেখ্য, ১/১১-এর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় হয়রানি ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

কারাগারে থাকাকালে শেখ হাসিনা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। সে সময় চিকিৎসার জন্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে তার মুক্তির দাবি জোরালো হয়ে ওঠে। আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য সহযোগী সংগঠন ও দেশবাসীর আন্দোলন, আপসহীন মনোভাব এবং অনড় দাবির পরিপ্রেক্ষিতে তৎকালীন সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।

এই মুক্তির মধ্য দিয়ে এ দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরে আসে। বিকাশ ঘটে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের। তার নেতৃত্বেই বাঙালির গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হয়। সেই থেকেই তিনি গণতন্ত্রের আলোকবর্তিকা, মাদার অব হিউম্যানিটি শেখ হাসিনা।

উল্লেখ্য, তৎকালীন সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নির্দেশে ধানমন্ডির বাসভবন সুধা সদন থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রথমে তাকে ঢাকা মেট্রোপলিটন আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগারে আটক রাখা হয়। অবশ্য এর আগে ১৯৮১ সালে দেশে ফেরার পর ১৯৮৩, ১৯৮৫ এবং ১৯৯০ সালেও তিনি রাজনৈতিক কারণে কারাবরণ করেন।

বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে মুক্তি দেয়ার দাবি ওঠে বিভিন্ন মহল থেকে।

মুক্তি পেয়েই চিকিৎসার উদ্দেশ্যে যুক্তরাষ্ট্রে যান তিনি। ২০০৮ সালের ৬ নভেম্বর দেশে ফিরলে স্থায়ী জামিন দেয়া হয় তাকে। পরে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে ঐতিহাসিক বিজয়ের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি তার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠিত হয়।সেই সাথে শুরু হয় বাংলাদেশের ইতিহাসে গণতন্ত্রের নতুন অভিযাত্রা ও উন্নয়নের নতুন সোপান।

Share This Article