শ্রীলঙ্কার মতো ঝুঁকিতে যেসব দেশ, তালিকায় নেই বাংলাদেশ

ক্রমবর্ধমান ঋণ এবং মুদ্রাস্ফীতিতে জর্জরিত ডজনখানেক উন্নয়নশীল দেশ। দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ এশীয় রাষ্ট্র পাকিস্তানও আছে। এই অঞ্চলেরই সংকটে থাকা শ্রীলঙ্কার মতো দেশগুলো সংকটে পড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ডেঞ্জার জোনে থাকা দেশগুলো নিয়ে বিশ্লেষণ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ভারত মহাসাগরীয় দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কার মতো অর্থনৈতিক সংকটে পড়তে পারে পাকিস্তান। অক্ষমতার তালিকায় ইতোমধ্যেই লেবানন, রাশিয়া, সুরিনাম এবং জাম্বিয়া জায়গা করে নিয়েছে। ঋণ সংকটের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে বেলারুশসহ কমপক্ষে ডজনখানেক দেশ। তবে এই ঝুঁকির তালিকায় নেই বাংলাদেশ।

 

ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঋণ রয়েছে আর্জেন্টিনার (১৫০ বিলিয়ন ডলার)। এরপরে রয়েছে ইকুয়েডর এবং মিশর (৪০ থেকে ৪৫ বিলিয়ন ডলার)। বিশ্লেষকরা বলছেন, যদি বিশ্ববাজার শান্ত হয় এবং আইএমএফের সমর্থন থাকে তাহলে এই সংকট এড়ানো সম্ভব। তবে প্রকৃতপক্ষেই দেশগুলো ঝুঁকিতে রয়েছে।
আর্জেন্টিনা

ঋণ সংকটের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে ল্যাটিন আমেরিকার দেশ আর্জেন্টিনা। দেশটির মুদ্রা পেসো এখন কালোবাজারে প্রায় ৫০ শতাংশ ডিসকাউন্টে লেনদেন হচ্ছে। তাদের বৈদেশিক রিজার্ভ অত্যন্ত কম এবং প্রতি ডলারে মাত্র ২০ সেন্টে বন্ড বাণিজ্য হচ্ছে। ২০২৪ সাল পর্যন্ত পরিষেবার জন্য কোনও উল্লেখযোগ্য ঋণ নেই দেশটির সরকারের।

ইউক্রেন

মরগান স্ট্যানলি এবং আমুন্ডির মতো হেভিওয়েট বিনিয়োগকারীরা বলেছেন, রুশ আগ্রাসনের কারণে ২০ বিলিয়ন ডলারের বেশি ঋণ পুনর্গঠন করতে হবে ইউক্রেনকে। সেপ্টেম্বরে যখন ১.২ বিলিয়ন বন্ড পেমেন্টে বাকি ছিল তখন থেকেই তাদের সংকট শুরু হয়। রাষ্ট্র-চালিত নাফটোগাজ এই সপ্তাহে দুই বছরের ঋণ ফ্রিজ করার জন্য বলেছে, বিনিয়োগকারীরা সন্দেহ করছে যে সরকার এটি অনুসরণ করবে।

তিউনিসিয়া

আফ্রিকাতে ঋণ সংকটের প্রথম দিকে অবস্থান করছে তিউনিসিয়া। তাদের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি বলে বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন। দেশটির প্রায় ১০ শতাংশ বাজেট ঘাটতি রয়েছে। দেশটির রাষ্ট্রপতি কাইস সাইদ ক্ষমতার ওপর তার দখলকে শক্তিশালী করার জন্য চাপের কারণে আইএমএফ প্রোগ্রাম সুরক্ষিত করা বা মেনে চলা অন্তত কঠিন হতে পারে।

তিউনিসিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান মারুয়ান আব্বাসী বলেছেন, তিউনিসিয়ান বন্ড স্প্রেড প্রিমিয়াম বিনিয়োগকারীরা মার্কিন বন্ডের পরিবর্তে ঋণ কেনার দাবি করছে। ইউক্রেন এবং এল সালভাদরের সঙ্গে তিউনিসিয়া মরগান স্ট্যানলির সম্ভাব্য খেলাপিদের শীর্ষ তিনটি তালিকায় রয়েছে৷ চলমান পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সাথে চুক্তি করা অপরিহার্য হয়ে উঠেছে।

ঘানা

বর্তমানে ঘানার ঋণ-টু-জিডিপি অনুপাত প্রায় ৮৫ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। দেশটির মুদ্রা চলতি বছর মূল্য প্রায় এক চতুর্থাংশ কমে গেছে। দেশটি ইতিমধ্যেই ঋণের সুদ পরিশোধের জন্য অর্ধেকের বেশি ট্যাক্স রাজস্ব ব্যয় করছে। মূল্যস্ফীতিও ৩০ শতাংশের কাছাকাছি।

মিশর

মিশরের ঋণ-টু-জিডিপির অনুপাত প্রায় ৯৫ শতাংশ। ফান্ড ফার্ম এফআইএম পার্টনার্সের ধারনা মতে, মিশরের ১০০ বিলিয়ন হার্ড কারেন্সি ঋণ রয়েছে যা আগামী পাঁচ বছরে পরিশোধ করতে হবে। এর মধ্যে ২০২৪ সালের ৩.৩ বিলিয়ন বন্ড রয়েছে।

ইএম ঋণের সিআইও ফ্রান্সেস বলসেলসের মতে, ২০২৭ সালের মধ্যে মিশরকে ১০০ বিলিয়ন ডলার দিতে হবে। তার প্রায় অর্ধেক আইএমএফ বা দ্বিপাক্ষিক যা প্রধানত উপসাগরীয় অঞ্চলে।

কেনিয়া

কেনিয়া তাদের আয়ের প্রায় ৩০ শতাংশ সুদের অর্থ প্রদানে ব্যয় করে। এর বন্ডগুলির মূল্য প্রায় অর্ধেক কমে গেছে। বর্তমানে এটির পুঁজিবাজারে কোনো অ্যাক্সেস নেই। সমস্যাটি মূলত ২০২৪ সালে ২ বিলিয়ন ডলারের বন্ডের কারণে হয়েছে৷

কেনিয়া, মিশর, তিউনিসিয়া এবং ঘানার বিশ্লেষকরা বলছেন, এই দেশগুলি কেবলমাত্র রিজার্ভের তুলনায় ঋণের পরিমাণ এবং ঋণের বোঝা স্থিতিশীল করার ক্ষেত্রে আর্থিক চ্যালেঞ্জগুলির কারণে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ।

ইথিওপিয়া

আদ্দিস আবাবা জি-২০ কমন ফ্রেমওয়ার্ক প্রোগ্রামের অধীনে ঋণ ত্রাণ পেতে প্রথম দেশগুলির মধ্যে একটি হওয়ার পরিকল্পনা করছে। দেশটিতে চলমান গৃহযুদ্ধের কারণে অগ্রগতি আটকে গেছে। যদিও এর মধ্যে দেশটি তার একমাত্র ১ বিলিয়ন আন্তর্জাতিক বন্ড পরিষেবা চালিয়ে যাচ্ছে।

এল সালভাদর

বিটকয়েন আইনি দরপত্র তৈরি করা দেশটিতে আইএমএফের আশার দরজা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। দেশটির ট্রাস্ট এমন পর্যায়ে নেমে গেছে যেখানে একটি ৮০০ মিলিয়ন বন্ড ছয় মাসে পরিপক্ক হওয়া ৩০ শতাংশ ডিসকাউন্টে এবং দীর্ঘমেয়াদী ৭০ শতাংশ ডিসকাউন্টে ট্রেড করে৷

পাকিস্তান

পাকিস্তান এই সপ্তাহে আইএমএফের সঙ্গে একটি গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি করেছে। উচ্চ জ্বালানি আমদানির দাম দেশকে অর্থপ্রদানের ভারসাম্য সংকটের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিয়েছে। দেশটিতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৯.৮ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে, যা পাঁচ সপ্তাহের আমদানির জন্য যথেষ্ট নয়। পাকিস্তানি রুপি দুর্বল হয়ে রেকর্ড পরিমাণে নেমে এসেছে। নতুন সরকারকে এখন দ্রুত ব্যয় কমাতে হবে কারণ দেশটি তার রাজস্বের ৪০ শতাংশ সুদ প্রদানে ব্যয় করে।

সূত্র : রয়টার্স, এনডিটিভি

Share This Article


বিশ্বের জন্য অস্ত্র উৎপাদনের ঘোষণা ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর

পাঁচ মিনিটের ব্যবধানে মা ও ছেলের মৃত্যু

মেক্সিকো: প্রশিক্ষণের সময় ৬ পুলিশ কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা

কোটি টাকা পারিশ্রমিক নিয়ে ফিরছেন সালমান

রিফাইনারি আধুনিকরণ: জ্বালানি তেল মিলবে অনেক কম দামে!

পূজা উদ্বোধনে কাঁধে ঢাক তুলে বাজালেন মমতা

হিলি স্থলবন্দরে ৮ দিন আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

একতা কাপুর ও তার মায়ের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

আকাশে উড়ল বিশ্বের প্রথম বিদ্যুৎচালিত বিমান!

বিশ্ব হার্ট দিবস আজ, দেশে স্ট্রোক হৃদরোগ ও কিডনির ঝুঁকি বাড়ছে

হারিকেন ‘ইয়ানে’ ভাসছে ফ্লোরিডা, বিদ্যুৎহীন ১৩ লাখ মানুষ, ২০ জন নিখোঁজ

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ‘বিশ্বযুদ্ধ’: পোপ ফ্রান্সিস

চোখ উঠলে যা করবেন, যা করতে মানা

প্রধানমন্ত্রী জাপান যাচ্ছেন নভেম্বরে

যৌন হয়রানির অভিযোগে শাবির ৭ শিক্ষার্থী বহিষ্কার