কমেছে টমেটো ও শসার দাম

সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে টমেটো ও শসার দাম কমেছে। কাঁচা মরিচের দাম বাড়লেও অপরিবর্তিত রয়েছে অন্যান্য পণ্যের দাম। শুক্রবার সকালে রাজধানীর মিরপুর ১১ নম্বর বাজার, মিরপুর কালশী বাজার ও পল্লবী এলাকা ঘুরে এসব চিত্র পাওয়া গেছে।

বাজারে প্রতিকেজি শসা বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৭০ টাকায়। এক সপ্তাহ আগে কেজি ছিল ৮০ টাকা। লম্বা বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা। গোল বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি। টমেটো দাম কমে বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকা। এক সপ্তাহ আগে টমেটোর কেজি ছিল ১৮০ থেকে ২০০ টাকা। করলা প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৬০ টাকা, চাল কুমড়া প্রতিপিস ৫০ টাকা, প্রতিপিস লাউ আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০ টাকা, কচুর লতি ৮০ টাকা, পেঁপে ৫০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা ও ধুন্দল বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে।

এসব বাজারে ৪০ টাকা দাম বেড়ে প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়। এক সপ্তাহ আগে কাঁচা মরিচের কেজি ছিল ১৬০ টাকা। এছাড়া কাঁচা কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। লেবুর হালি বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকা। শুকনা মরিচের কেজি ৪০০ টাকা।

মিরপুর ১১ নম্বর বাজারের সবজি ব্যবসায়ী রাহাত আমিন বলেন, সবজির দাম তেমন বাড়েনি। সরবরাহ কম থাকায় শুধু কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে। টমেটো ও শসার দাম অনেক কমেছে।

এসব বাজারে আলু বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা কেজি দরে। দাম কমেছে পেঁয়াজের। প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। আর একটু ভালো মানের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকায়। বাজারে দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা ও চায়না রসুন ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা। আদার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকায়।  

বাজারে প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৮৫ টাকায়। এছাড়া প্যাকেট চিনির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। এছাড়া এসব বাজারে দেশি মসুরের ডালের কেজি ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা ও ইন্ডিয়ান মসুরের ডাল বিক্রি হচ্ছে ১১০ টাকায়।  

প্যাকেট আটার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকায়। খোলা আটার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। ভোজ্যতেলের লিটার বিক্রি হচ্ছে ২০৫ টাকায়।  

এসব বাজারে লাল ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা, হাঁসের ডিমের ডজন ১৯৫ থেকে ১৯০ টাকা ও দেশি মুরগির ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ১৯০ টাকায়।  

বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৭০০ টাকা, খাসির মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০০ টাকায়।

এসব বাজারে ব্রয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা, সোনালি মুরগির কেজি ২৫০ থেকে ২৬০ টাকা ও লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৮০ থেকে ৩০০ টাকায়।  

মিরপুর ১১ নম্বর বাজারের মুরগি ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মুরগির দাম বাড়েনি। গত সপ্তাহের দামে মুরগি বিক্রি হচ্ছে। আগামী সপ্তাহে মুরগির দাম বাড়তে পারে।

Share This Article


কুখ্যাত ওয়াগনার ঘাঁটি লক্ষ্য করে ইউক্রেনের হামলা

রাতের আঁধারে ইসরায়েলের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা, সিরিয়ার ৩ সেনা নিহত

হিরো আলম অবশ্যই ট্যালেন্ট: মিশা সওদাগর

সাভারে এখনো বঙ্গবন্ধুর খুনির বাবার নামে চলছে স্কুল

রাজধানীর চকবাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

সুন্দর বাংলাদেশ গড়তে হলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে হবে : সোহেল তাজ

কত দেশ এখন মন্দার শঙ্কায়

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

রাজধানীর চকবাজারে পলিথিন কারখানায় আগুন

কিমকে চিঠিতে কী লিখেছেন পুতিন?

তাজমহলে একদিনে রেকর্ড ৮০ হাজার দর্শনার্থী!

মালদ্বীপের হেড কোচ হলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটার

মুক্তির সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ: কাদের

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের শহীদদের শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর