মাঠের দখল নিতে বিদেশীদের নতুন ছক:কি ঘটবে র‌্যাব নিস্ক্রিয় হলে?

  নিউজ ডেস্ক
  প্রকাশিতঃ বিকাল ০৩:০০, সোমবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৩, ২৭ চৈত্র ১৪৩০

 র‌্যাব যদি মাঠ পর্যায়ে কঠোর অবস্থানে থাকতে না-পারে এবং সেই সুযোগটা কাজে লাগাবে অন্যান্য সশস্ত্র গোষ্ঠী।আর এই সুযোগটি করে দিতেই র্যাবকে বিতর্কিত করতে কাজ করছে কিছু বিদেশি মিডিয়া। 

পশ্চিমারা একসময় জঙ্গিবাদ ইস্যুতে বাংলাদেশকে চাপে রাখতো। এখন জঙ্গিবাদ নেই, কিন্তু জঙ্গিবাদ নিরসনে ভূমিকা রাখা র‌্যাবকে নিয়েই প্রশ্ন তুলছে তারা। 

বিচার বহির্ভূত হত্যা, মানবাধিকার লঙ্ঘনসহ র‌্যাবকে নিয়ে পশ্চিমাদের রয়েছে নানান অভিযোগ। বাংলাদেশের মানবাধিকার রক্ষায় পশ্চিমা কুটনীতিক, রাজনীতিবিদ এমনকী সেসব দেশের মিডিয়াগুলোও বেশ সোচ্চার।  
কিন্তু আপনাদেরকে কি ধারণা, এই দেশের সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তার জন্যই উদ্বিগ্ন পশ্চিমারা? বিষয়টি মোটেও তা নয়। মূলত নির্বাচনের আগে যে কোন দেশকে চাপে রেখে নিজের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যেই মানবতার কথা বলে তারা। কিন্তু ইসরায়েলের মতো শক্তিমান রাষ্ট্রকে চাপে ফেলা সম্ভব না বলে ফিলিস্তিনের মানবতা নিয়ে তারা টু শব্দটিও করেনা।

পশ্চিমারা একসময় জঙ্গিবাদ ইস্যুতে বাংলাদেশকে চাপে রাখতো। এখন জঙ্গিবাদ নেই, কিন্তু জঙ্গিবাদ নিরসনে ভূমিকা রাখা র‌্যাবকে নিয়েই প্রশ্ন তুলছে তারা। অর্থাৎ এখন তাদের জঙ্গিবাদ দরকার, তাদের দরকার চাপে ফেলার ইস্যু।

র‌্যাব নিস্ক্রিয় থাকলে কি সুবিধা তাদের :

পুলিশের মূল কাজ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা করা। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের মতো অপরাধে মনযোগ দিতে হলে পুলিশের স্বাভাবিক কাজ ব্যহত হয়। তাই বিশ্বের বহু দেশেরই শুধু বিশেষ অপারেশনের জন্য র‌্যাবের মতো বিশেষ বাহিনী রাখা হয়। 
র‌্যাব প্রতিষ্ঠার আগে বাংলাদেশ ছিলো জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের অভয়রন্য। কিছু ঘটনা মনে করিয়ে দেয়া যাক :

এরশাদের আমলে ১৯৮৬ সালে চাকরিচ্যুত সেনা কর্মকর্তা মতিউর রহমান 'মুসলিম মিল্লাত বাহিনী' নামের একটি জঙ্গি সংগঠন গড়ে তোলে। ১৯৮৯ সালে আড়াই দিনব্যাপী বন্দুকযুদ্ধের পর তাদের পরাস্ত করতে সক্ষম হয় পুলিশ।তখন থেকেই বাংলাদশে জঙ্গিবাদ শুরু।

এরপর ৯১ থেকে ‘৯৬ সাল পর্যন্ত বিএনপির শাসনামলে ডালপালা ছড়ায় জঙ্গিরা। ১৯৯২ সালে ছাত্র শিবির রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রকাশ্য পুলিশের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। নবাব আব্দুল লতিফ হল গান পাউডার দিয়ে দিনে দুপুরে পুড়িয়ে দেয় তারা।

১৯৯৯ সালে ঈদুল ফিতরের আগের রাতে কবি শামসুর রাহমানকে হত্যার জন্য তার বাড়িতে আক্রমন করে হরকতুল জিহাদ। সেবছরই উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর সম্মেলনে বোমা হামলা করা হয়।

খুলনার আহমদিয়া মসজিদে বোমা হামলায় আট জন নিহত হয়। বাগেরহাট জনসভায় ৯ জন, সুনামগঞ্জে আওয়ামী লীগের নেতা সুরঞ্জিত সেনের জনসভায় বোমা হামলায় চার জন নিহত হয়।

জঙ্গি হামলার আশঙ্কায় ২০০০ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন বাংলাদেশ সফরে এসেও সাভার স্মৃতিসৌধসহ গ্রামীণ ব্যাংক পরিদর্শন বাতিল করেছিলেন। সেবছর এ কারণেই সার্ক শীর্ষ সম্মেলন বাতিল হয়েছিল।

২০০৪ সাল থেকে শুরু হয় বাংলা ভাইয়ের তান্ডব। সে বছর বোমা হামলা হয় হজরত শাহজালাল (রহ.) মাজার প্রাঙ্গণে। এতে সাত জন নিহত হয়। অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পাযন বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত আনোয়ার চৌধুরী।

২০০৫ সালে দেশের ৬৩টি জেলার ৫০০টি পয়েন্টে একই সময়ে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। একই বছর বরিশালে আদালতে যাবার পথে সোহেল আহমদ ও জগন্নাথ পাড়ে নামে দুজন বিচারককে হত্যা করা হয়।

মূলত এমনই একটি ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি ছিলো বাংলাদেশের। কিন্তু এগুলো এখন কোথায়? র‌্যাব আসার পর তাদের সফল।অভিযানে একে একে বন্ধ হয়েছে জঙ্গিবাদের কারখানা, ঠান্ডা হয়ে গেছে সব।

এখন মিডিয়ার মাধ্যমে চাপ প্রয়োগ করে র‌্যাবকে বিতর্কিত করে তাদের যদি ঘরে বসিয়ে রাখা যায়, র‌্যাব যদি মাঠ পর্যায়ে কঠোর অবস্থানে থাকতে না-পারে এবং সেই সুযোগটা কাজে লাগাবে অন্যান্য সশস্ত্র গোষ্ঠী।আর এই সুযোগটি করে দিতেই র্যাবকে বিতর্কিত করতে কাজ করছে কিছু বিদেশি মিডিয়া। ডয়েচে  ভেলে ও নেত্র নিউজ তার মাঝে অন্যতম।অতি সম্প্রতি  র্যাবকে নিয়ে পুরোনো একটি ঘটনাকে নতুন মোড়কে জার্মান সংবাদ মাধ্যম ডয়চে ভেলের উপস্থাপন সেই ইঙ্গিতই বহন করে।

সমালোচকরা বলছেন,নির্বাচনের আগে র্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যাতে তেমন সক্রিয় হতে না পারে ।মাঠ যাতে ফাঁকা থাকে সেই প্রচেষ্টাই করছে এসব বিদেশি মিডিয়া।সরকার হার্ডলাইনে না থাকলে সিভিল এনার্কি বাড়বে, দ্বিপাক্ষিক সংঘাত বাড়বে, জঙ্গিরা মাথাচাড়া দেবে। আর বহি:শক্তি সেই সুযোগটিই খুঁজছে। নিজেদের তাবেদার সরকার বসানোর চেষ্টা করে, নিজেদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে তৎপর হয়ে উঠছে তারা।এগুলো অতীতে বার বার ঘটেছে, বিশ্বের বহু দেশেই ঘটেছে।কাজেই আসন্ন নির্বাচনকে সমনে রেখে এসব বিদেশি মিডিয়ার অপপ্রচার নিয়ে সরকার ও দেশের মানুষকে যথেষ্ট সতর্ক থাকতে হবে।

Share This Article

আন্দোলনকারীদের মারধরে র‍্যাব সদস্যের অবস্থা সংকটাপন্ন

৪ ঘণ্টায়ও নেভেনি বিটিভির আগুন

ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রস্তুত হয়ে যান : ওবায়দুল কাদের

শিবির-ছাত্রদলের নির্মমতা: চট্টগ্রামে ছাদ থেকে ফেলে দেয়া হয় ১৫ ছাত্রলীগ কর্মীকে

ধৈর্যের পরীক্ষা দিচ্ছি, এটা দুর্বলতা নয়: ডিবিপ্রধান হারুন

অহেতুক কিছু কথায় মূল্যবান জীবন ঝরে গেল : প্রধানমন্ত্রী

সর্বোচ্চ আদালতের রায়ই আইন হিসেবে গণ্য হবে: জনপ্রশাসনমন্ত্রী

আইনি প্রক্রিয়ায় সমস্যা সমাধানের সুযোগ রয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

কোটার আড়ালে চট্টগ্রামে শিবির নেতার নির্দেশেই হত্যাকাণ্ড?

আন্দোলন ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে ষড়যন্ত্র করছে: ডিবিপ্রধান


ঢাকা কলেজের ছাত্রের প্রাণহানি, সারা দেশে নিন্দার ঝড়

শিবির-ছাত্রদলের নির্মমতা: চট্টগ্রামে ছাদ থেকে ফেলে দেয়া হয় ১৫ ছাত্রলীগ কর্মীকে

আমরা সরকার পতন করেই ঘরে ফিরবো: গাজীপুর থেকে আগত শিবির কর্মী

কোটা আন্দোলনে জামায়াত-শিবির অনুপ্রবেশ, শিক্ষকদের মারধর

প্রধানমন্ত্রী'র বক্তব্যের মর্মার্থ বিকৃত করলো কারা

দুইজন নিহতের অসত্য দাবি যুক্তরাষ্ট্রের, কড়া প্রতিবাদ বাংলাদেশের

সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠে স্বঘোষিত ‘রাজাকার,’ কেমন মেধাবী তারা?

কোটা আন্দোলনে বিএনপির অর্থায়ন, সারা দেশে শিবিরের শক্ত নেটওয়ার্ক

ঢাবি ক্যাম্পাসে যেভাবে জড়ায় ছাত্রলীগ

'রাজাকার' পরিচয় দিতে একবারও লজ্জা হলো না তাদের

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সাথে 'ওয়ান ইলেভেন' সরকারের আচরণ যেমন ছিল

কোটা সংস্কার আন্দোলন: সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠে দাঁড়িয়ে কলঙ্কের পদচিহ্ন এঁকে দিলো যারা!